‘সবাই আমাকে পতিতা দেখতে চান, তাও প্রধান পতিতা নয়’

154
bdtruenews24.com

সফলতার অর্থ একেক মানুষের কাছে একেক ধরনের। বিশেষ করে সালমা হায়েকের জন্যে তা বেশ অস্বস্তিকর। ১৯৮৯-এর কথা। মাত্র ২৩ বছর বয়সে ম্যাক্সিকান শর্ট ফিল্ম ‘টেরেসা’-তে অভিনয় করে নজরে আসেন। এই ফিল্মটি দেশের ৭০ শতাংশ মানুষ উপভোগ করেন।

শুধুমাত্র সালমার বাবা, মা এবং এক ওয়েল ড্রিলিং কম্পানির পরিচালক বাকি ৩০ শতাংশের মধ্যেই ছিলেন। বেশ সফল হয়েছিল সিনেমাটি। সামান্য পরিসরে সেলিব্রেট করলেন তারা। সেখানে হায়েককে অনেকে নজরে রাখলেন। তার স্বাভাবিক চালচলনেই বোদ্ধারা ভবিষ্যতের প্রতিভা দেখতে পেলেন। এরপর ২৬ বছর কেটে গেছে। সালমার বয়স এখন ৫০। এর মাঝে বহু দূর এগিয়েছেন তিনি। হায়েক সহজাত অভিনেত্রী।

তার প্রতিভা মূলত নতুন ছবি ‘টেল অব টেলস’-এ আরো উদ্ভাসিত হয়েছে। ইতালিয়ান পরিচালক ম্যাটেও গ্যারোনের পরিচালনায় ১৭ শো শতকের নিয়াপলিটান কবি জিয়ামবাতিস্তা বাসিলের লেখনি সিনেমায় পরিণত হচ্ছে। এর কেন্দ্রিয় চরিত্রে রয়েছেন সালমা। যেখানে সন্তানহীন রানি সি-ড্রাগনের হৃদযন্ত্র খেয়ে গর্ভবতী হয়ে পড়েন। পরে তিনি ও তার স্বামী ফ্রেঞ্চ বিলিয়নিয়ার ফ্রাঙ্কোইস-হেনরি পিনাল্টের ঘরে আসে এক ফুটফুটে কন্যা। এ ছবির স্ক্রিপ্ট দেখে তিনি বুঝতেই পারছিলেন, এটা কিভাবে কি হবে। তবে ধীরে ধীরে সবকিছু স্পষ্ট হয়ে ওঠে। হলিউড তারকার হিসাবে তিনি খ্যাতি লাভ করেন ১৯৯৫ সালের ব্লকবাস্টার ‘ডেসপেরাডো’র মাধ্যমে।

২০০৩ সালে শিল্পী ফ্রিডা কাহলোর বায়োপিকে অভিনয় করে সেরা অভিনেত্রী মনোনীত হন। এই শিল্পী সাধারণত অপরিচিতদের নিয়েই কাজ করেন। গ্যারোনে যখন সালমাকে প্রস্তাব করেন নতুন সিনেমায় রূপকথার রানি চরিত্রে অভিনয় করতে, তখন এটাকে পাগলামি বলেই মনে হলো তার। কিন্তু ক্রমেই আগ্রহী হয়ে উঠলেন তিনি। ১৯৯১ সালে হায়েক লস অ্যাঞ্জেলসের একটি অভিনয় শিক্ষণ স্কুলে ভর্তি হন। সেখানে তিনি পেয়েছিলেন স্টেলা অ্যাডলারকে।

এই নারী হলিউডের প্রথম নেতৃস্থানীয় ম্যাক্সিকান নারী। সেই নারী হায়েককে এমন সব তথ্য দেন যা কি অবিশ্বাস্য। ম্যাক্সিকান অভিনেত্রীরা সাধারণত বারবনিতা বা গভর্নেসের জন্যে বাছাই হয়ে থাকেন। সিনেমায় এর বেশি কিছু তারা করতে পারেন না। একবার তাকে শীর্ষস্থানীয় এক স্টুডিও জানায়, আপনি এখানে মুখ খোলামাত্র সবাই আপনাকে কোনো বাড়ির কাজের মেয়ের চরিত্রের জন্যে বাছাই করে নেবেন। নব্বুইয়ের দশকের মাঝামাঝির কথা বললেন সালমা হায়েক।

জানালেন, তারা আমাকে পতিতার চরিত্রে দেখাতে চান। কিন্তু কখনোই পতিতাদের নেত্রীর চরিত্রে নয়। তাই ভবিষ্যতে মেক্সিকানদের জন্যে কাজ করতে চান তিনি। আমেরিকানদের বর্ণবিদ্বেষের শিকার তিনি, এমনটাই মনে করেন। তাই প্রেসিডেন্ট পদপ্রার্থী ডোনাল্ড ট্রাম্পকে দেখতে পারেন না। বলেন, ট্রাম্পকে দেখলেই আমেরিকার চিত্রটা পেয়ে যাবেন। তারা পক্ষপাতদুষ্ট। সূত্র : টেলিগ্রাফ

Follow Facebook

আপনার মন্তব্য প্রকাশ করুন: