শাহীন আল মামুন-এর কবিতা

156
bdtruenews24.com

ভ্রমণে এসেছি


ভ্রমণে এসেছি
সমাধির বুকে শুয়ে আছি
ঘুমন্ত শক্তিকে উপক্ষা করে
গল্পের মানুষেররা অল্প অপ্ল করে
ধোঁয়াশার মতো কোথায় যেনো
উড়ে যাচ্ছে

আতশকাচ, ফাঁকা চোখ
কোন কিছুতেই তারা যে আর
পড়ছে না ধরা।

যতো কাছে যাচ্ছি ততোই ফুটে উঠছ
স্থায়ী এক গল্পের, যা নির্মাণ হয়েছে
আমার নিবিড় শরীরে, মনে।

নষ্টালজিতে উর্বর শক্তি নিয়ে
সমাধির বুকে শুয়ে আছি
গোলাপজল ছিটিয়ে।

পুরোন দেবতারা


তার কোন পরিচয় নেই।

দেবতার আগমন ঘটেছিলো কবে
এমন প্রশ্ন কেবলি অন্তরস্থলে
গ্রন্থিত কালোলিপিতে।
তার কোন পরিচয় নেই
নেই কোন দেবতার ভুমিকা…

একদা রোদের আগমনে ভেঙে গেছে সব
আঁধারকে জানিয়েছিলো আমন্দ্রন
কেননা ওখানেই জন্ম হয়েছিলো ভবিষ্যত…

পুরোন জনপথের, পুরোন মন্দিরের
পুরোন দেবতারা আসনে অভিশাপের বজ্রপাতে
আর্তনাতে ভেঙে পরেছে বিশ্বস
ভৌগলিক দেবতার গায়ে চড়ানো স্বর্ণবরম
আজ বাতাসের আঘাতে হয়েছে ধূলিস্বাদ
জেগেছে নতুন বিশ্বাস।
পুরোন দেবতারা আজ শুধু ইতিহাস

প্রার্থনার মুনাফা আমিও পেতে চাই


প্রার্থনার মুনাফা আমিও পেতে চাই, ঈশ্বর
বিষম রেখার কাছাকাছি জেগে আছি
অহংকারের শরীর সামরাজ্য;

দোযোকনামায় শরীর নেমেছে কারিগরী ক্রটির কারনে—
বানিজ্যকনীতিতে দূত এসেছে এই সোলালী শ্যষক্ষেতে
ভুলে তুলে নিয়ে গেছে কিছু ঘাস
বুনেছে নতুন গালিচা

অন্ধকারের ক্ষমতায় নিভেছে কয়েকটি প্রদীপ
জ্বলছে দোযোকের মশাল চারদিকে
ক্ষমাহীন সময়ে এসেছে গোলকধাধায়
প্রার্থনার মুনাফা আমি পেতে চাই, ঈশ্বর

গোলকচিত্র পাল্টে দিয়ে আমিও যে এখন পূন্যপাপের বৃক্ষ…

শেয়ার করুন :
Follow Facebook

আপনার মন্তব্য প্রকাশ করুন:

Loading Facebook Comments ...