নির্বাচনকালীন সহায়ক সরকারের রূপরেখা চূড়ান্ত করেছে বিএনপি

নির্বাচনকালীন সহায়ক সরকারের রূপরেখা চূড়ান্ত করেছে বিএনপি
ছবি সংগৃহীত

অবশেষে নির্বাচনকালীন সহায়ক সরকারের রূপরেখা চূড়ান্ত করেছে বিএনপি। ঈদের পর আনুষ্ঠানিক সংবাদ সম্মেলনের মাধ্যমে সহায়ক সরকারের প্রস্তাব উপস্থাপন করবে বলে বিএনপির একটি দায়িত্বশীল সূত্র নিশ্চিত করেছে। একজন নিরপেক্ষ ব্যক্তির নেতৃত্বে নির্বাচনকালীন সময়ে একটি দল নিরপেক্ষ সরকার গঠনের প্রস্তাব দেওয়া হয়েছে, নির্বাচনকালীন সরকারের প্রস্তাবনায়। এই প্রস্তাবনায় অবাধ, সুষ্ঠু, নিরপেক্ষ নির্বাচনের স্বার্থে তত্ত্বাবধায়ক সরকার ব্যবস্থা পুন:প্রবর্তনসহ ৫টি সুপারিশ করা হয়েছে। বিএনপির প্রস্তাবিত নির্বাচনকালীন সরকার ফর্মুলায় যে ৫টি সুপারিশ করা হয়েছে সেগুলো হলো:

১. যেহেতু বাংলাদেশ সুপ্রিম কোর্ট তত্ত্বাবধায়ক সরকার সংক্রান্ত রায়ে পরবর্তী দুই মেয়াদে তত্ত্বাবধায়ক সরকার ব্যবস্থা রাখার কথা বলা হয়েছে, তাই অবিলম্বে সংবিধানে তত্ত্বাবধায়ক সরকার ব্যবস্থা সুপ্রিম কোর্টের পর্যবেক্ষণের আলোকে পুনর্প্রবর্তন করতে হবে। যদি শেষ পর্যন্ত ক্ষমতাসীন দল সেটি না করে তাহলে আলোচনার ভিত্তিতে, নির্দলীয় নিরপেক্ষ সরকার প্রতিষ্ঠা করা যেতে পারে। সমঝোতার শর্ত হবে যে, নির্বাচনের পর ৯১ এর মতো সকলে সম্মিলিত ভাবে এই তত্ত্বাবধায়ক সরকারকে  সাংবিধানিক বৈধতা দেবে।

২. নির্বাচনের ১৮০ দিন পূর্বে বর্তমান জাতীয় সংসদ ভেঙ্গে দিতে হবে।

৩. বর্তমান নির্বাচন কমিশন যেহেতু অবাধ, সুষ্ঠু নির্বাচন আয়োজনে ব্যর্থ হয়েছে, তাই বর্তমান নির্বাচন কমিশন ভেঙ্গে, সকলের মতামতের ভিত্তিতে সকলের কাছে গ্রহণযোগ্য ও আস্থাভাজন নির্বাচন কমিশন গঠন করতে হবে।

৪. সিভিল প্রশাসন এবং আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীকে নিরপেক্ষ ভাবে কাজ করার সুযোগ দিতে হবে। দলীয় অনুগত প্রশাসন এবং পুলিশের লোকজনকে নির্বাচন কার্যক্রম থেকে সরিয়ে দিতে হবে।

৫. নির্বাচনে সেনা মোতায়েন নিশ্চিত করতে হবে।

বিএনপির একাধিক সূত্র নিশ্চিত করেছে যে, বিএনপি এতদিন ধরে তত্ত্বাবধায়ক সরকারের দাবি থেকে সরে আসার কথা বললেও নির্বাচনকালীন সরকার প্রস্তাবনায় পুরোনো তত্ত্বাবধায়ক সরকারের দাবি করেছে। তবে, বিএনপি বলছে, এজন্য সংবিধান সংশোধনের প্রয়োজন নেই। কারণ সংবিধান সংক্রান্ত আপিল বিভাগের রায়ের পর্যবেক্ষণেই এ কথা বলা আছে। বিএনপির সূত্রগুলো বলছে, সর্বশেষ অবসরে যাওয়া প্রধান বিচারপতি সুরেন্দ্র কুমার সিনহা অথবা শান্তিতে নোবেল জয়ী অর্থনীতিবিদ ড. মুহাম্মদ ইউনূসকে নির্বাচনকালীন সরকার প্রধান হিসেবে দেখতে চায় বিএনপি।

তবে আনুষ্ঠানিক ঘোষণায় বিএনপি হয়তো নির্বাচনকালীন সরকার প্রধান হিসেবে কারও নাম উচ্চারণ করবে না। রাজনৈতিক বিশ্লেষকরা বলছে, তিনবছর অপেক্ষার পর বিএনপি যে নির্বাচনকালীন সরকারের রূপরেখা তৈরি করেছে, তা তত্ত্বাবধায়ক সরকার ব্যবস্থায় ফিরে যাওয়ারই প্রস্তাবনা। তত্ত্বাবধায়ক সরকার ব্যবস্থায় ফিরতে ক্ষমতাসীন দল যে কোনোভাবেই রাজি হবে না, তা বিএনপিও জানে। এটি জানার পরও নতুন করে আন্দোলনের ইস্যু তৈরির জন্যই বিএনপি এটিকে সামনে আনছে এমনটাই ধারণা রাজনৈতিক পর্যবেক্ষকদের।

শেয়ার করুন :
  • 47
    Shares
Follow Facebook

আপনার মন্তব্য প্রকাশ করুন:

Loading Facebook Comments ...