ইরাক ও সিরিয়ায় কোণঠাসা আইএস

ফালুজার একাংশ পুনর্দখল ও রাকায় ঢুকে পড়েছে সেনাবাহিনী

106
bdtruenews24.com

ইরাকের ফালুজায় ইসলামিক স্টেট (আইএস) নিয়ন্ত্রিত এলাকার একটি গুরুত্বপূর্ণ ভূখণ্ড গতকাল শনিবার ইরাকি বাহিনী দখল করেছে। অন্যদিকে, সিরিয়ার রাকা প্রদেশে আইএস ঘাঁটিতে ২০১৪ সালের পর প্রথমবারের মতো গতকাল শনিবার ঢুকে পড়েছে সিরীয় বাহিনী। যুদ্ধ পর্যবেক্ষণকারী একটি মানবাধিকার সংগঠন এ খবর জানিয়েছে।

আইএসের কথিত খেলাফত ধ্বংস করার জন্য ইরাকের মসুল শহরের পাশাপাশি সিরিয়ায় আইএসের কার্যত রাজধানী রাকা শহরও আইএসবিরোধীদের অন্যতম লক্ষ্য।

ব্রিটেনভিত্তিক সিরিয়ান অবজারভেটরি ফর হিউম্যান রাইটস জানিয়েছে, সিরিয়ার হামা প্রদেশের পূর্ব দিকের আইএস-নিয়ন্ত্রিত ভূখণ্ডে শুক্রবার রুশ বাহিনী বিমান হামলা চালায়। আর এর মধ্য দিয়ে সিরিয়ার সেনাবাহিনী রাকা প্রদেশের প্রান্তে পৌঁছে যায়।

সিরিয়ান অবজারভেটরি ফর হিউম্যান রাইটসের পরিচালক রামি আবদেল রহমান বলেন, ‘রাশিয়ার বিমানবাহিনী ও রাশিয়ার প্রশিক্ষণপ্রাপ্ত মিলিশিয়াদের সহায়তায় অঞ্চলটির সরকারি বাহিনী ২০১৪ সালের আগস্টের পর প্রথমবারের মতো শনিবার সকালে রাকা প্রদেশে প্রবেশ করে।’ এ সময় অন্তত ২৬ জন আইএস যোদ্ধা নিহত হন। অন্যদিকে, সরকারি বাহিনী ও মিলিশিয়ার নয়জন সদস্য প্রাণ হারান।
উল্লেখ্য, রাকা শহরের ২৫ মাইল উজানে ইউফ্রেতিস নদীতে অবস্থিত গুরুত্বপূর্ণ তাকবা বাঁধ ও তাকবার সরকারি বিমান ঘাঁটিও আইএসের নিয়ন্ত্রণে রয়েছে।

আবদেল রহমান বলেন, দক্ষিণ-পশ্চিম দিক থেকে সামান্য অগ্রসর সরকারি বাহিনীকে তাকবা থেকে ২৫ মাইলেরও কম ব্যবধানে নিয়ে গেছে। তাকবা বাঁধটি আবার মার্কিন মদদপুষ্ট কুর্দি নেতৃত্বাধীন বাহিনীর হামলারও লক্ষ্যবস্তু। গত মাসের শেষের দিকে উত্তরের দিক থেকে আক্রমণের মধ্য দিয়ে অগ্রসর হচ্ছে তারাও। এই পরিচালক এ-ও বলেন, ‘দেখে মনে হচ্ছে যে অঘোষিত সমন্বয় রয়েছে ওয়াশিংটন ও মস্কোর মধ্যে।’

এদিকে, বাগদাদের ৩০ মাইল পশ্চিমে আইএসের অন্যতম গুরুত্বপূর্ণ ঘাঁটি ফালুজা পুনর্দখল করতে ইরাকি বাহিনী গত ২২-২৩ মে বড় ধরনের অভিযান শুরু করে। দেশটির নিরাপত্তা সূত্র বলে, ফালুজায় আইএসের ঘাঁটির পশ্চিমের গুরুত্বপূর্ণ ভূখণ্ড সাকলাউইয়া শহর গতকাল দখল করেছে দেশটির সরকারি বাহিনী। জয়েন্ট অপারেশনস কমান্ড এক বিবৃতিতে জানায়, ইরাকি সেনাবাহিনীর ১৪তম ডিভিশন ও আধা সামরিক সংস্থা হাশেদ আল-শাবি মহাসড়ক থেকে সাকলাউইয়া শহরের কেন্দ্র গুঁড়িয়ে দিয়ে ইরাকি পতাকা ওড়ায়। শহরটি পুনর্দখল অভিযানে কেন্দ্রীয় পুলিশ বাহিনীও অংশ নেয়। সাকলাউইয়া শহরে অভিযানের কারণ হিসেবে বলা হয়, পশ্চিমের জাজিরাত আল-খালদিয়াহ থেকে ফালুজাকে বিচ্ছিন্ন করা। কারণ যেকোনো স্থানে অবস্থান নিতে পৌঁছাবার জন্য জাজিরাত আল-খালদিয়াহকে গমনাগমনের রুট হিসেবে আইএস ব্যবহার করে থাকে। গতকাল সবশেষ খবর পর্যন্ত এলিট বাহিনী ফালুজার কেন্দ্রে প্রবেশের চেষ্টা করে যাচ্ছে। আর ফালুজাকে পুরোপুরি বিচ্ছিন্ন করতে এর আশপাশ মুক্ত করে যাচ্ছে অন্যান্য বাহিনী।

শেয়ার করুন :
Follow Facebook

আপনার মন্তব্য প্রকাশ করুন:

Loading Facebook Comments ...