খৃস্টান ব্যবসায়ী হত্যা: ভাড়াটিয়া আটক

84
bdtruenews24.com

নাটোরের বড়াইগ্রাম উপজেলার বনপাড়ায় খৃস্টান ব্যবসায়ী সুনিল গোমেজ হত্যার ঘটনায় জড়িত সন্দেহে পুলিশ একজনকে আটক করেছে। আটক ব্যাক্তি নিহতের বাড়ির ভাড়াটিয়া ট্রাক ড্রাইভার আব্দুল্লাহ আল মামুন সবুজ (৩০)।তিনি জেলার লালপুর উপজেলার কদিমচিলান গ্রামের শফিকুল ইসলামের ছেলে।

রোববার দুপুর ১২টার দিকে বনপাড়া খৃস্টান পল্লীর মা মারিয়া গীর্জার পশ্চিম পাশে হত্যা করা হয় সুনিল গোমেজকে।নিহত সুনিল গোমেজ বনপাড়া খৃস্টান পল্লীর  যোসেফ গোমেজের ছেলে।

এদিকে এ ঘটনার সাথে ধর্মীয় উগ্রপন্থি গোষ্ঠি জড়িত বলে সন্দেহ প্রকাশ করেছেন ওই ধর্ম পল্লীর বাসিন্দারা। তবে প্রশাসন এখনো বিষয়টিকে সেভাবে দেখছে না। তারপরও চোখ কান খোলা রেখেই মাঠে নেমেছে পুলিশ এমন দাবি কর্তা ব্যক্তিদের।

এদিকে বিকেলে একটি বেসরকারী টেলিভিশনে নিষিদ্ধ জঙ্গীসংগঠন আইএস এই হত্যার দায় শিকার করেছে বলে খবর প্রচার হওয়ায় নতুন করে আতংক ছড়িয়ে পড়েছে। নড়ে চড়ে বসেছে আইনশৃংখলা বাহিনী।

পুলিশ ও এলাকাবাসী জানায়, প্রতিদিনের মত সুনিল গোমেজ বাড়ী থেকে বের হয় সকালে গির্জায় যান প্রার্থনার জন্য। প্রার্থনা সেরে তিনি সকাল ৮টার দিকে বাড়ীর সাথেই মুদি দোকান খুলে বসেন। এরপর বেলা ১২ টার দিকে স্থানীয় কিছু লোকজন দোকানে পণ্য কেনার জন্য আসেন। এরপর স্থানীয়রা রক্তাক্ত অবস্থায় সুনিল গোমেজের মৃতদেহ দেখতে পায়। এ সময় সুনীল গোমেজের মৃতদেহটি দোকানের ঝাপের নিচের দেয়ালের উপর ঝুলে ছিল।

এ সময় তার হাতের মুঠিতে কিছু টাকা ধরে রাখা ছিল। তার ঘাড়ে পিঠে সহ শরীরের বিভিন্ন স্থানে আঘাতের চিহ্ন রয়েছে। তবে কারা কখন কিভাবে হত্যা করেছে জানাতে পারেনি তার পরিবারের লোকজন। ধারনা করা হচ্ছে দূর্বৃত্তরা খদ্দের বেশে এসে তাকে হত্যা করে কৌশলে পালিয়ে যায়। তার ঘাড়ে একই জায়গায় ধারালো অস্ত্রের কয়েকটি কোপের গভীর আঘাত রয়েছে।

ঘটনার পর র‌্যাব-৫-এর সিও মাহবুব আলম, নাটোরের পুলিশ সুপার শ্যামল কুমার মুখার্জি, ইউএনও মো. রুহুল আমিন, অতিরিক্ত পুলিশ সুপার মুন্সী শাহাবুদ্দীন, সিআইডি ইন্সপেক্টর সেকেন্দার আলী ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছেন।

এ ব্যাপারে সুনিল গোমেজের একমাত্র মেয়ে স্বপ্না জানান, তার মা কমলা গোমেজ সাতদিন আগে চাটমোহরে বাবার বাড়িতে বেড়াতে গিয়েছিলেন। আর স্বপ্না নিজে স্বামীর বাড়িতে থাকায় ঘটনার সময় বাড়িতে পরিবারের কোনো সদস্য উপস্থিত ছিলেন না।

তবে তিনি জানান, তার বাবার সঙ্গে কারো কোন শত্রুতা ছিল না। তারপরেও এই ধরণের হত্যাকান্ডে নির্বাক তারা। এ ঘটনার পর তারা আতংকে আছেন।

এই খৃস্টান পল্লীর পুরোহিত ফাদার হিউবার্ট রিবেরু বলেন, এ রকম একজন নিরীহ লোকের হত্যাকাণ্ডে তারা বাকরুদ্ধ। এই মুহূর্তে কোনো মন্তব্য করতে তিনি অপারগতা প্রকাশ করেন। তবে তার প্রশ্ন কেন এমন বৃদ্ধ, শান্তি প্রিয় একজন মানুষকে হত্যা করা হলো? এ ঘটনায় আমরা স্তব্ধ, নির্বাক। কারো সাথে তার কোন বাদানুবাদের কথা কখনও শুনিনি বলে তিনি জানান।

এদিকে নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক এক শিক্ষক বলেন, বিষয়টি তদন্ত করে দ্রুত ব্যবস্থা নেয়া দরকার। পুরো খ্রিস্টান পল্লীতে এখন আতংক বিরাজ করছে। দেশের সম্প্রীতি নষ্ট করতে কোন গোষ্ঠি পরিকল্পিত ভাবে এ কাজ করে যাচ্ছে বলে তিনি মনে করেন।

এ বিষয়ে বনপাড়া পুলিশ তদন্ত কেন্দ্রের ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা এসআই আশরাফ জানান, সুনিল গোমেজকে কুপিয়েই হত্যা করা হয়েছে। তবে কারা এই হত্যাকাণ্ডের সঙ্গে জড়িত সে বিষয়ে এখনো পরিস্কার নয়। স্থানীয় লোকজন কাউকে হত্যা করতে দেখেনি। পুলিশ বিষয়টি নিয়ে খোঁজ খবর চালিয়ে যাচ্ছে।

সিআইডি পরিদর্শক সেকেন্দার আলী বলেন, প্রাথমিকভাবে ব্যবসা সংক্রান্ত মনে হলেও সাম্প্রতিক হত্যাকাণ্ডের সঙ্গে এ ঘটনার মিল থাকায় বিষয়টি তাদেরকেও ভাবিয়ে তুলেছে। তাই এর সঙ্গে কোনো জঙ্গী সম্পৃক্ততা আছে কিনা তা মাথায় রেখেই তদন্ত চলছে। হত্যাকাণ্ডের এলাকা সংরক্ষণ ও আলামত সংগ্রহ করেছে সিআইডি।

নাটোরের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার মুনশী সাহাবুদ্দিন বলেন, তিনি ঘটনাস্থলে রয়েছেন। বিষয়টি নিয়ে পরিবারের লোকজন আত্মীয় স্বজন ও এলাকাবাসীর সঙ্গে কথা বললে তারা তেমন কিছুই জানাতে পারছেন না। কী কারণে এ ঘটনা ঘটেছে তা এখনও উদঘাটন করা সম্ভব হয়নি। চাঁদাবাজি সংক্রান্ত কোনো ঘটনা থাকতে পারে বলে প্রাথমিক ভাবে ধারনা করা হচ্ছে। তবে তার মতে আইএস বা কোন জঙ্গী সম্পৃক্ততা তারা এখনো খুঁজে পাননি। নিহতের লাশ ময়নাতদন্তের জন্য মর্গে পাঠানো হয়েছে।

শেয়ার করুন :
Follow Facebook

আপনার মন্তব্য প্রকাশ করুন:

Loading Facebook Comments ...